পবিত্র রমজানেও লোহিত সাগরে হামলা চালাবে হুথি

দখলদার ইসরায়েলের আগ্রাসনের শিকার গাজাবাসীর প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছে ইয়েমেনের হুথি আনসারুল্লাহ আন্দোলনের নেতা আব্দুল-মালিক আল-হুথি।

রোববার (১০ মার্চ) রাতে রাজধানী সানা থেকে এক টেলিভিশন ভাষণে তিনি বলেন, ‘পবিত্র রমজান মাসেও লোহিত সাগরে প্রতিশোধমূলক হামলা চালিয়ে যাবে তারা।’

গাজা উপত্যকার ওপর ইসরায়েলি গণহত্যার ব্যাপারে যেসব মুসলিম নেতা নীরব রয়েছেন তাদের তীব্র সমালোচনা করে হুথি নেতা বলেন, গাজা সংঘাতের ব্যাপারে যারা কোনো অবস্থান নেয়া থেকে বিরত রয়েছে তারা প্রকৃতপক্ষে অবিশ্বাসের অধোবিন্দুতে পৌঁছে গেছে।

ইয়েমেনে প্রতি সপ্তাহে অনুষ্ঠিত ফিলিস্তিন-পন্থি বিক্ষোভকে ‘অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ’ আখ্যায়িত করে আল-হুথি বলেন, এসব বিক্ষোভ বিশ্ববাসীকে একথা জানান দিচ্ছে যে, ইসরায়েল, আমেরিকা ও ব্রিটেনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট জাহাজগুলোতে ইয়েমেনের সশস্ত্র বাহিনী যে হামলা চালাচ্ছে তার প্রতি জনগণের পূর্ণ সমর্থন রয়েছে।

ইয়েমেনের হুথিদের সমর্থিত সরকার গত বছরের অক্টোবর মাস থেকে গাজা উপত্যকায় ইসরায়েল ভয়াবহ গণহত্যার জবাবে লোহিত সাগর, এডেন উপসাগর ও বাব আল-মান্দাব প্রণালিতে ইসরায়েলি মালিকানাধীন ও ইসরায়েলগামী জাহাজগুলোতে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। গত জানুয়ারি মাসে ইঙ্গো-মার্কিন বাহিনী হুথিদের অবস্থানে বিমান হামলা চালানোর পর ইয়েমেনের সেনাবাহিনী হামলার লক্ষ্যবস্তু হিসেবে মার্কিন ও ব্রিটিশ জাহাজগুলোকেও অন্তর্ভুক্ত করেছে।

এদিকে ইসরায়েলি হামলায় নিহতের সংখ্যা ৩১ হাজার ছাড়িয়েছে। আহত হয়েছেন ৭২ হাজার ৬৫৪ জন। ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা আল জাজিরা ও আনাদলু।

এদিকে, হামাসের হামলায় এক হাজার ১৩৯ জন ইসরায়েলি নিহত হয়েছেন। প্রায় ৮৫ শতাংশ গাজাবাসী খাদ্য, বিশুদ্ধ পানি এবং ওষুধের তীব্র ঘাটতির মধ্যে ইসরায়েলি আক্রমণে বাস্তুচ্যুত হয়েছে, যেখানে ৬০ শতাংশ অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত বা ধ্বংস হয়েছে। এমনটাই বলছে জাতিসংঘ।

উল্লেখ্য, গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের দক্ষিণাঞ্চলে নজিরবিহীন হামলা চালায় ফিলিস্তিনিদের সশস্ত্র সংগঠন হামাস। হামলায় ১২শ’র বেশি মানুষ নিহত হয়। জিম্মি করে নিয়ে যায় আরও ২৪২ জনকে। ওই দিন থেকে পাল্টা আক্রমণে তীব্র আক্রোশে গাজার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে ইসরায়েলি বাহিনী। গাজা উপত্যকায় অবিরাম বিমান ও স্থল হামলা চালিয়ে যাচ্ছে দখলদার দেশটি। ইসরায়েলি এই হামলায় হাসপাতাল, স্কুল, শরণার্থী শিবির, মসজিদ, গির্জাসহ হাজার হাজার ভবন ক্ষতিগ্রস্ত বা ধ্বংস হয়ে গেছে।

Check Also

ইসরায়েলি হামলায় গাজায় একই পরিবারের ১৩ শিশু নিহত

দক্ষিণ গাজার রাফাহ অঞ্চলে ইসরাইলি বিমান হামলায় এক পরিবারের ১৩ জন শিশুসহ দুই জন নারী …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *