বরিশাল চরবাড়িয়ায় উন্নয়ন, সাঁকোই ভরসা! (ভিডিওসহ)
বরিশাল চরবাড়িয়ায় উন্নয়ন, সাঁকোই ভরসা! (ভিডিওসহ)

বরিশাল চরবাড়িয়ায় উন্নয়ন, সাঁকোই ভরসা! (ভিডিওসহ)

বরিশাল চরবাড়িয়ায় উন্নয়ন, সাঁকোই ভরসা! (ভিডিওসহ)।। *টি.আর-কাবিখা-কাবিটা নগদ ৯৭ লাখ ৩৮ হাজার ছয়শত আটান্ন টাকা! *কাবিখা চাল:-৩০ হাজার ২৯০ মে:টন! *কাবিখা গম:-২৩ হাজার মে:টন!
সাগর বৈদ্য ॥ রাস্তা সংস্করণ, কালভার্ট পুননির্মাণের নাম করে নানা প্রকল্পের অর্থ এনে তা আত্মসাত করছেন বরিশাল সদর আসনের এমপি ও পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামীম’র অনুসারীরা। আত্মসাতকারীদের হাত থেকে রক্ষা পায়নি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান মসজিদও। মসজিদ উন্নয়ন নামে বরাদ্দ এনে করেছেন আত্মসাত। মসজিদের অর্থ আত্মসাতের বিষয়টি জানাজানি হলে মসজিদ কমিটিকে ৩০ হাজার টাকা প্রদান করেছেন মন্ত্রীর অনুসারীরা।
সাপানিয়া কাজী বাড়ি মসজিদ সংলগ্ন রাস্তা ও মসজিদের ঘাটলা পুন:নির্মাণ ও সংস্কারের জন্য ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে টি.আর কর্মসূচির বরাদ্দ আসে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। দীর্ঘদিন পর্যন্ত বন্ধ হয়ে থাকা সেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান এর ভবন সংস্কারের দেওয়া হয়েছে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা। স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা বলেন তাদের নিজেস্ব কোন ভবন নেই। এছাড়া দীর্ঘদিন পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটি সকল কার্যক্রম বন্ধ আছে। অনুদানের জন্য আবেদন করুণ
তিনি নিজেও জানেন না কারা উক্ত অর্থ উত্তোলন করেছেন। এছাড়া চরবাড়িয়া ইউনিয়ন এর বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের নামে নানা অংকের অর্থ বরাদ্দ এনে করা হয়েছে আত্মসাত। এ যেন হরিলুটের রাজ্য! কাগজে কলমে উন্নয়ন দেখানো হলেও বাস্তবে নেই তার কোন মিল। ওরা নদী ভাঙ্গনের মানুষ! প্রতিনিয়ত নদীর সাথে যুদ্ধ করেই চলছে জীবন। একদিকে যেমন নদী ভাঙ্গনের ভয় নিয়ে করতে হয় বসবাস, অন্যদিকে চলাচলের জন্য নেই তেমন কোন রাস্তাও।
সাঁকো এবং নৌকাই যেন চলাচলের একমাত্র ভরসা! চরবাড়িয়া ইউনিয়নের বসবাসরত মানুষগুলো বরিশাল সদর উপজেলার বাসিন্দা হলেও এখনো পরিবর্তন হয়নি তাদের জীবনমান। কাগজে কলমে উন্নয়ন দেখানো হলেও বাস্তাবে নেই তার কোন মিল। চরবাড়িয়া ইউনিয়নের লামছড়ি, উত্তর লামছড়ি, দক্ষিণ লামছড়ি, চরাবদানী, চরবাড়িয়া, মধ্য-চরবাড়িয়া, উলাল বাটনা, কাগাশুরা, উনালগণি, সাপানিয়া, মতাসার গ্রামসহ অধিকাংশ গ্রামে নেই চলাচলের উপযুক্ত রাস্তা! যা আছে, তাও আবার ভাঙ্গা।
রাস্তার মাঝে মাঝে দেয়া বাঁশের সাঁকোই এই এলাকাবাসীর চলাচলের একমাত্র ভরসা! এলাকাবাসীরা বলছেন, কোন মতে মাটি ভরাটের নামমাত্র কাজ করে অর্থ আত্মসাত করছেন সংশ্লিষ্টরা। যার ফলে সামান্য বৃষ্টি হলেই রাস্তা ভেঙ্গে আলাদা হয়ে যাচ্ছে। ফলে চরম দুর্ভোগে পড়ছেন ইউনিয়নের চরবাড়িয়া, লামছড়িসহ এ এলাকার অন্যান্য গ্রামের কয়েকশ পরিবার।
সময়ের বার্তার হাতে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী দেখা যায়, গত সাড়ে ৪ বছরে চরবাড়িয়া ইউনিয়নে উন্নয়ন খাতে টিআর, কাবিখা ও কাবিটা এর অনুকুলে বরাদ্দ করা হয়েছে ৯৭ লাখ ৩৮ হাজার ৬৫৮ টাকা। মসজিদ, রাস্তা সংস্কার, কালভার্ট সংস্করণের নামে টিআর-কাবিখা-কাবিটার বরাদ্দ এনে মন্ত্রীর অনুসারীরা করছেন অনিয়ম-দুর্নীতি। কাগজে-কলমে রাস্তা ও কালবার্ট সংস্কার দেখানো হলেও তার সাথে বাস্তাবে নেই কোন মিল।

বরিশাল চরবাড়িয়ায় উন্নয়ন, সাঁকোই ভরসা! (ভিডিওসহ)

বরিশাল চরবাড়িয়ায় উন্নয়ন, সাঁকোই ভরসা! (ভিডিওসহ)
বরিশাল চরবাড়িয়ায় উন্নয়ন, সাঁকোই ভরসা! (ভিডিওসহ)
সরকারের লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন বরিশাল সদর আসনের এমপি ও পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামীম এর অনুসারী দল থেকে বহিস্কৃত আওয়ামী লীগ নেতা-শহিদুল ইসলাম (ইতালি শহিদ),মোঃ হাফিজুর রহমান, মেম্বার ১ নং ওয়ার্ড, বাটনা গ্রাম।
https://www.youtube.com/watch?v=RSUa-4-v1Ws&ab_channel=SomoyerBarta
জাহিদুল ইসলাম তুহিন (চরবাড়ীয়া ইউনিয়ন বিএনপির যুবলীগ নেতা, মেম্বার ৬ নং ওয়ার্ড), মোঃ জসিম উদ্দিন, হাবিবুর রহমান টিপু (কৃষকদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, বর্তমানে ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক),মামুন হোসেন, মেম্বার ৮ নং ওয়ার্ড। ফিরোজ গাজী, ৫ নং ওয়ার্ড মেম্বার সহ একাধিক মন্ত্রীর অনুসারীরা।
এমনটাই জানালেন চরবাড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগ এর সাংগঠনিক সম্পাদক মো: মাহতাব হোসেন সুরুজ। তিনি আরও বলেন ইউনিয়নে ১টি রাস্তার দুই প্রান্ত থেকে ২ বার করা হয় উদ্ভোধন।
এছাড়া ইউনিয়নে কোন উন্নয়ন মুলক কাজ করেননি বরিশাল-৫ আসনের এমপি জাহিদ ফারুক শামীম। গত সাড়ে ৪ বছরে চরবাড়িয়া ইউনিয়নে উন্নয়ন খাতে টিআর, কাবিখা ও কাবিটা প্রকল্পে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে বরাদ্দ দেয়া হয় ১৫ লাখ ৮৪ হাজার ৪৫২ টাকা, ১৯-২০ অর্থ বছরে বরাদ্দ দেয়া হয় ৫ লাখ ৩০ হাজার টাকা, ২০-২১ অর্থ বছরে বরাদ্দ দেয়া হয় ১৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ২১-২২ অর্থ বছরে বরাদ্দ দেয়া হয় ৩৮ লাখ ৭৪ হাজার ২০৬ টাকা ও ২০২২-২৩ অর্থ বছরে এখন পযর্ন্ত বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ১৮ লাখ টাকা।
এছাড়া গত ৫ বছরে কাবিখা- কাবিটা প্রকল্পের আওতায় চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ৩০ হাজার ২৯০ মে.টন ও গম বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ২৩ হাজার মে.টন। এলাকা বাসীর দাবী বিভিন্ন প্রকল্প বরাদ্দ এনে কাজ না করেই হাতিয়ে নেন অর্থ।
বরিশাল সদর আসনের এমপি ও পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামীম এর নির্বাচনী এলাকা চরবাড়িয়া ইউনিয়ন এর বিভিন্ন ওয়ার্ডের রাস্তা, মসজিদ ও মাদ্রাসার নামে বরাদ্দ নিয়ে অধিকাংশ বরাদ্দর টাকা আত্মসাত করেছেন মন্ত্রীর অনুসারীরা। প্রায় কোটি টাকার বেশি বরাদ্দ পাওয়ার পরও উন্নয়নের কোন ছোয়া লাগেনি চরবাড়িয়া ইউনিয়নে। আদৌ কি এই এলাকার মানুষের ভাগ্য পরির্বতন হবে? নাকি কাগজে কলমের মধ্যে থেমে থাকবে উন্নয়ন এর ছোঁয়া? এই প্রশ্নই এখন স্থানীয় অসহায় জনসাধারণের মনে।
যুক্ত হোন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে এখানে ক্লিক করুন। এবং আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন ফেইজবুক পেইজে এখানে ক্লিক করে।

Check Also

ঈদে নৌযাত্রায় যাত্রীদের ঝামেলার শঙ্কা

ঢাকা-বরিশাল নৌরুটের বিলাসবহুল লঞ্চের আগাম টিকিট বিক্রি শেষ পর্যায়ে হলেও যাত্রীদের কাছ থেকে আশানুরূপ সাড়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *